1. [email protected] : Faisal Ahmed : Faisal Ahmed
  2. [email protected] : Developer :
  3. [email protected] : Sylhet Press : Sylhet Press
নোট-গাইড ছাপা নিষিদ্ধ, শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত হচ্ছে রবিবার
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

  • আপডেটের সময় : এপ্রিল, ২৯, ২০২১, ১:২৩ অপরাহ্ণ
নোট-গাইড ছাপা নিষিদ্ধ, শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত হচ্ছে রবিবার
ছবি-প্রতীকী

নোট-গাইড ছাপা নিষিদ্ধ, শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত হচ্ছে রবিবার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সিলেটপ্রেস ডেস্ক :: নোট ও গাইড বই ছাপা, প্রকাশ ও বিপণন নিষিদ্ধ করার বিধান রেখে শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত করতে যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে আগামী রবিবার (২ মে) ভার্চুয়াল বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সভাপতিত্বে ওইদিন বেলা ২টায় এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

বুধবার (২৮ এপ্রিল) মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এর আগে গত ১৬ ফ্রেব্রুয়ারি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ভার্চুয়াল বৈঠকে প্রাথমিকভাবে খসড়াটি চূড়ান্ত করা হয়।

রবিবারের বৈঠকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সব অতিরিক্ত সচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত থাকবেন।

খসড়া আইনটিতে বলা হয়েছে, একজন শিক্ষক তার নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের প্রাইভেটে পড়াতে পারবেন না। একইসঙ্গে শিক্ষকরা যাতে স্কুলের শিক্ষার্থীদের শারীরিক শাস্তি না দেন এবং মানসিক নিপীড়ন না করেন, সেই কথাও বলা হয়েছে খসড়ায়।

কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, খসড়া আইনটিতে নোট ও গাইড বই ছাপা, প্রকাশ ও বিপণনের শাস্তি হিসেবে সর্বোচ্চ তিন বছরের কারাদণ্ড বা পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করার বিধান রয়েছে। যদি কোনো শিক্ষক তার নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নোট ও গাইড বই কেনার জন্য চাপ প্রয়োগ করে থাকে, তাহলে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে শিক্ষা সহায়ক বই প্রকাশের অনুমতি দেবে সরকার।

এতে বলা হয়েছে, যদি কোনো প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক শিক্ষার্থীদেরকে শিক্ষা সহায়ক বই কেনার জন্য চাপ প্রয়োগ করে থাকেন, তাহলে সেটি অসদাচরণ বলে বিবেচিত হবে এবং ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। স্কুলগুলো দুর্বল শিক্ষার্থীদের জন্য অতিরিক্ত ক্লাসের ব্যবস্থা করতে পারবে। তবে, সেক্ষেত্রে পিতামাতার লিখিত অনুমতি নিতে হবে। সরকার কর্তৃক প্রণীত বিধি বা নীতিমালা কিংবা নির্বাহী আদেশের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে স্কুলের নির্ধারিত ক্লাসের সময়ের আগে কিংবা পড়ে অতিরিক্ত ক্লাসগুলো নিতে হবে।

চাকরিপ্রত্যাশী, ভর্তিচ্ছু শির্ক্ষাথী কিংবা ইংরেজি দক্ষতা বাড়াতে আগ্রহীদের সহায়তা করতে যে কোচিং সেন্টারগুলো আছে, সেগুলো এই আইনের আওতায় পড়বে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা।

খসড়া আইনটিতে আরও বলা হয়েছে, কোনো শিক্ষকই শিক্ষার্থীদের দৈহিক শাস্তি দিতে পারবেন না এবং মানসিকভাবে কোনো ধরনের হয়রানি করতে পারবেন না। এই বিধান লঙ্ঘন করলে তা অসদাচরণ হিসেবে বিবেচিত হবে এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা জানান, আইনটির খসড়া নিয়ে মন্ত্রণালয়ের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এ বিষয়টি নিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠকে তাদের আলোচনা হবে। পরে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি ও মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তারা এ বিষয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন করবেন।

সিলেটপ্রেসবিডিডটকম /২৯ এপ্রিল ২০২১/ এফ কে


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এই বিভাগের আরও খবর


© All rights reserved © 2020 SylhetPress
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ