1. [email protected] : Developer :
  2. [email protected] : Sylhet Press : Sylhet Press
লালদিঘীরপারে হোটেল ভাই ভাই এর সাইনবোর্ডের অন্তরালে মিনি পতিতালয়
শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ক্ষমতা দখলের গভীর ষড়যন্ত্রের তথ্য উদ্‌ঘাটন করেছে গোয়েন্দা সংস্থা: ওবায়দুল কাদের প্রধানমন্ত্রী শনিবার জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন জাতির পিতার অসম্পন্ন কাজ আমরা সম্পন্ন করবো: প্রধানমন্ত্রী বগুড়া শেরপুরে তিন সন্তান নিয়ে লিটনের মানবেতর জীবন যাপন! গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করছি কবি রাজিয়া খানম জৈন্তাপুরে মসজিদের পাঠদান শিক্ষক কর্তৃক ফ্লাক্সের গরম চা ঢেলে শিশু ছাত্র নির্যতন বাহুবলে প্রয়াত আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহঃ) এর স্মরণ সভা ওসমানীনগরে ভাবির দায়ের আঘাতে আহত দেবর বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন বিশ্বনাথ উপজেলা শাখার কমিটি অনুমোদন দিরাইয়ে চাচাতো ভাইদের হামলায় ইতালি প্রবাসী আহত

লালদিঘীরপারে হোটেল ভাই ভাই এর সাইনবোর্ডের অন্তরালে মিনি পতিতালয়

  • আপডেটের সময় : সেপ্টেম্বর, ১৫, ২০২০, ৪:৪৫ pm
লালদিঘীরপারে হোটেল ভাই ভাই এর সাইনবোর্ডের অন্তরালে মিনি পতিতালয়
ছবি- সিলেটপ্রেস
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্টাফ রিপোর্টার :: এই করোনাকালেও এখানে জমে কামুকদের আড্ডা। পুলিশ, বাংসাদিক (সাংবাদিক) যুব বুড়ো, ব্যবসায়ী শিক্ষার্থী সকলই যায় এই মধুকুঞ্জের মধু আস্বাদনে। পাশাপাশি নোটও পান পুলিশ বাংসাদিক ও স্থানীয় চাঁদাবাজ-বখরাবাজরা। এক সময় এটির নাম ছিল হোটেল সুপার। পরিবর্তনে নাম হয়েছে হোটেল ভাই ভাই। নামে আবাসিক হলেও এখানে কেউ থাকে না। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নিয়ে আসা কিশোরী-তরুণী ও দালাল ছাড়া এই হোটেলে কোন বর্ডার নেই। নারী-শিশু ধর্ষণ ও নির্যাতনের নিরাপদ স্পট সিলেট নগরীর লালদিঘীর পারস্থ হোটেল ভাই ভাই। হোটেল নামের এই পতিতালয় ভাড়ায় রেখে পরিচালনা করেন নগরীর মাছিমপুর এলাকার বাসিন্দা দিলাল মিয়া ও ফরিদ মিয়া।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, দেশের বিভিন্নস্থান থেকে চাকরি দেওয়া, বিয়ে করার প্রলোভনে এনে অনেক তরুণী ও যুবতীদের এই হোটেল তালাবন্ধী করে রেখে ইচ্ছার বিরুদ্ধে দেহদানে বাধ্য করা হয়। বিভিন্ন স্থান থেকে অপহৃত ও অপ্রাপ্ত বয়স্কা মেয়েদের রেখে চড়া দামে খদ্দের কামনা পূরণে দেওয়া হয়ে থাকে। মদ্যপ ও কামুক টাইপের কিছু সাংবাদিক ও পুলিশ প্রতিদিন এই হোটেলে গিয়ে সময় কাটান। টাকার পাশাপাশি কচি’দের উপহার দেওয়া হয় তাদেরকে।

অনলাইন ও ভুঁইফোড় মিডিয়া কর্মীদের একটি তালিকা রয়েছে হোটেল ম্যানজারের কাছে। তালিকা অনুযায়ী সাপ্তাহিক ও মাসিক অগ্রিম বখরা পেয়ে থাকেন তারা। সূত্রমতে নিখোঁজ বা অপহৃত মেয়েদের খোজ এই হোটেলেই পাওয়া যাবে। তবে প্রশাসনের লোকজনক ম্যানেজ থাকার কারনে কোন অভিযান এখানে পরিচালিত হয় না। গণমাধ্যমে লেখালেখির কারনে মাঝে-মধ্যে আইওয়াশ অভিযান করা হয়। অভিযানে আটকা পড়লে বয়স আঠারোর্ধ্ব দেখিয়ে জরিমানা দিয়ে ছাড়িয়ে পুইরায় নিয়ে যাওয়া হয়। পুলিশ-সাংবাদিক ম্যানেজ থাকায় দিনে-দুপুরে নারীদের ওঠা-নামা করালেও বাঁধা দেওয়ার সাহস কারোর নেই। প্রতিবাদ করলেই নারী নির্যাতন মামলার হুমকি দেওয়া হয়।

সিলেটপ্রেসবিডিডটকম /১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০/এফ কে


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এই বিভাগের আরও খবর


© All rights reserved © 2020 SylhetPress
পোর্টাল বাস্তবায়নে : বিডি আইটি ফ্যাক্টরী লিঃ