সম্মিলিত নাট্য পরিষদের ১৭দিন ব্যাপী নাট্য উৎসবের ১১ তম দিন – SylhetPressbd

সম্মিলিত নাট্য পরিষদের ১৭দিন ব্যাপী নাট্য উৎসবের ১১ তম দিন

প্রকাশিত: ১২:০২ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২০

সম্মিলিত নাট্য পরিষদের ১৭দিন ব্যাপী নাট্য উৎসবের ১১ তম দিন

সিলেটপ্রেস ডেস্ক :: সিলেটের সাংস্কৃতিক আন্দোলনের অন্যতম চালিকাশক্তি সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেট মহান ভাষা আন্দোলনের মাসে একুশের আলোকে নাট্য প্রদর্শনীর দীর্ঘতম আয়োজনের ১১ তম দিন ছিল মঙ্গলবার। ‘একুশে মিছিল, একুশে হাঁটা, একুশ মানে না পথের কাঁটা’ এই স্লোগানে ১১তম দিনের পরিবেশনায় ছিল মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক নাটক ‘বধ্যভূমিতে শেষদৃশ্য’। কাজী মাহমুদুর রহমানের রচনায় নাটকটি নির্দেশনা দিয়েছেন রজত কান্তি গুপ্ত। সন্ধ্যা ৭টায় কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে মঞ্চে নাটকটি মঞ্চায়ন করে নাট্যমঞ্চ সিলেট।

নাটক মঞ্চায়ন শেষে নাট্যদলের হাতে ফুল ও স্মারক তুলে দেন নর্থইস্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের উপাচার্য্য প্রফেসর ড. আতফুল হাই শিবলী ও মঈন উদ্দিন মহিলা কলেজের অধ্যাপক পার্থ সারথী দাস। একাত্তরের লোমহর্ষক দিনগুলোর বর্বরোতার চিত্র ও গণহত্যার দৃশ্য উপস্থাপনার মধ্য দিয়ে নাট্য শিল্পীরা ‘বধ্যভূমিতে শেষদৃশ্য’ নাটকটি মঞ্চায়ন করেন। নাটকে বর্বরোতার দৃশ্য অভিনয় শিল্পীদের নৈপুন্যে ফুটে উঠে এবং অনেকেই ফিরে যান একাত্তরের সেই দিনগুলির স্মৃতি ও গল্পতে।

বধ্যভূমিতে শেষদৃশ্য নাটকটিতে একাত্তরে যুদ্ধবিদ্ধস্থ বাংলাদেশের শত শহস্ত্র বধ্যভূমির কথা বলা হয়েছে। নাটকে গল­ামারী বধ্যভূমির নিঃশংসতার চিত্র ফুটে উঠেছে। যা নিরস্ত্র মুক্তিকামী বাঙালীর উপর পাকিস্থানীদের বর্বরতার একটি চিত্র। কাহিনীর চরিত্র কিংবা পাত্রপাত্রি শুধুমাত্র কল্পনা বিলাসের জন্য নয়, ওরা ছিল একাত্তরের যুদ্ধ সময়ের ঘটনার প্রতিচ্ছবি। নাটকে বর্বর পাকসেনারা কিভাবে নির্যাতন চালিয়ে কয়েকজন মানুষের স্বপ্ন ও মুক্তির চিন্তাকে হত্যা করে তা নাটকে ফুটে উঠেছে। নাটকে নিঃশংসতায় অন্ধ বন্দি সুজা অন্য বন্দিদের মাঝে খুঁজে পায় তার স্বপ্নের মেয়েটিকে। যাকে সে বিদেশে থাকাকালীন সময়ে মায়ের পাঠানো ছবিতে দেখেছিল। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিণতি গল­ামারী বধ্যভূমিতে তার স্বপ্নের সেই মেয়েটি তাঁর কাছে অন্যদের মতই বন্দি, সে তাকে দেখতে পারছে না। বন্দি মেয়েটিকে তাঁর স্বপ্ন আর মেয়েটি নিয়ে মায়ের পাঠানো ছবির কল্পনার কথা বলতে গিয়ে শেষ মূহুর্তে জানতে পারে তাঁর সমস্ত ভালবাসা, বন্দি মেয়েটিকে নিয়ে। পাকিস্তানি সুবেদারের কুট কৌশলে নাটকের এক পর্যায়ে সকল বন্দিদের ছেড়ে দেওয়ার শর্ত দেওয়া হয়, এই বলে যদি বন্দি সুজা নিজের হাতে তার স্বপ্নের মেয়েটিকে হত্যা করে। সুজা শর্তে রাজি না হলেও মেয়েটি তার সঙ্গে ঘটে যাওয়া পাকিস্তানীদের বর্বরোতার করুণ কাহিনীতে লজ্জা, ঘৃণা ও অপমানের কথা সুজাকে স্মরণ করিয়ে দেয় এবং বলে সে এই নরপশু নয়, সুজার হাতেই নিজের জীবনের মুক্তি চায়। শেষ দৃশ্যে সুজা পাকিস্তানি সুবেদারের কুট কৌশলের প্রতিশোধ নেয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত অন্যান্য বর্বর পাকসেনারা সুজা সহ সকলকেই হত্যা করে গল­ামারিতে। এরকম মুক্তিযুদ্ধের সময়ে ভয়াবহ দিনগুলোকে ‘বধ্যভ‚মিতে শেষ দৃশ্য’ নাটকের মধ্য দিয়ে স্মরণ করিয়ে দেয়।

নাটকে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেন, রজত কান্তি গুপ্ত, শাহীন আহমদ, বিধান সিংহ, রিবেন তালুকদার, মরিয়ম নুসরাত টুম্পা, মেহেদী হাসান, রুখন উদ্দিন, রিজান আহমদ রুমেল, কাওছার রহমান, কাওছার আহমদ, মৌমি আক্তার, সাহিদা বিনতে হাসান, চয়ন পাল শান্ত, আমিনুর রহমান রুহিত, রামানুজ গুপ্ত।

১৭দিন ব্যাপী এই নাট্য প্রদর্শনীতে অংশ নিচ্ছে সিলেটের ১৬টি নাট্যদল। নাট্যপ্রদর্শনী উপলক্ষ্যে সিলেটের নাট্যমোদী দর্শকের উপস্থিতি ও উৎসাহ এযাবতকালের সর্ববৃহৎ নাট্যপ্রদর্শনীকে প্রাণবন্ত করে তুলছে।
আজ বুধবার ১৭দিনব্যাপী নাট্যোৎসবের ১২ তম দিনে নবশিখা নাট্যদল মঞ্চস্থ করবে মুনির চৌধুরী রচিত নাটক ‘কবর’। আগামী ১৭ ফেব্র“য়ারি পর্যন্ত প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টায় রিকাবীবাজার কবি নজরুল অডিটোরিয়াম মঞ্চে নাটক মঞ্চায়িত হবে। নাটকের প্রবেশপত্র হল কাউন্টারে বিকেল ৫টা থেকে পাওয়া যাবে। ১৭ দিনব্যাপী নাট্য প্রদর্শনীতে সহযোগিতা করছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়, সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও জেলা পরিষদ, সিলেট।

 

সিলেটপ্রেসবিডিডটকম/১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০/এফ কে 

  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

Send this to a friend